১ লক্ষ টাকায় পাওয়া যাবে পুরভোটের টিকিট। বিজেপি নেতার কথোপকথনের ভিডিও ভাইরাল হতেই তুলকালাম রাজ্য রাজনিতী।

রাজ্য

আর একমাস পরেই ডিসেম্বর মাসে রাজ্যে পৌরসভার ভোট হতে চলেছে কলকাতা ও হাওড়ায়। ১৯ এ ডিসেম্বর কলকাতা ও হাওড়ায় পুরভোট হতে চলেছে । পৌরসভার ভোটের আগেই চরম সঙ্কটে রাজ্য বিজেপি। এবার পুরভোটের আগেই বড়সড় ধাক্কা খেল রাজ্য বিজেপি। ১ লক্ষ টাকায় পাওয়া যাবে পুরভোটের টিকিট। বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদারের সঙ্গে যোগাযোগের দাবি বিজেপি নেতার। দক্ষিণ কোলকাতা জেলার বিজেপি যুব নেতা প্রীতম সরকারের কথোপকথনের ভিডিও সামনে আসতেই সোরগোল রাজ্য রাজনিতীতে। ভিডিও সত্যতা আমাদের নিউজ পর্টাল যাচাই করেনি।

বিজেপি নেতার কথোপকথনের ভিডিও ভাইরাল হতেই তোলপাড় রাজ্য রাজনিতী। তৃণমূল কংগ্রেস তাদের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে ভাইরাল ভিডিও ট্যুইট করে তদন্তের দাবি জানিয়েছে। তৃণমূল মুখপাত্র কুনাল ঘোষ একধাপ এগিয়ে গিয়ে সিবিআই তদন্তের আবেদন জানিয়েছেন।

বিজেপি নেতা ও মেঘালয়ের প্রাক্তন রাজ্যপাল তথাগত রায় আগে থেকেই বিজেপির ভেতরে টাকা ও নারী দিয়ে টিকিট ও পদ পাওয়া যায় এমনই অভিযোগ করে আসছেন। কয়েকদিন আগেই বিজেপি নেতা তথাগত রায় এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন তার কাছে তথ্য ও প্রমান আছে বিধানসভা ভোটে কে কত টাকা দিয়ে কাদের কাছে টিকিট পেয়েছে। এবং কোন নারী কোন নেতার কাছে কবে গিয়েছে সব তথ্য তার কাছে আছে। দলের বড় বড় পদ পাওয়ার জন্য টাকা ও নারী দিয়ে টিকিট পাওয়া যায়।

তথাগত রায় নাম করে বলেছেন কৈলাশ বিজয়বর্গী, শিবপ্রকাশ ও অরবিন্দ মেনন সহ দিলীপ ঘোষরা এর সাথে জড়িত আছেন। তথাগত রায়ের বয়ানে তোলপাড় হয়েছিল রাজ্য রাজনিতী। তবে বিজেপি নেতা প্রীতম সরকারের ভিডিও ভাইরাল হতেই রাজ্যের সাধারণ মানুষের মনে প্রশ্ন ডানা বাঁধছে তাহলে তথাগত রায় ঠিক বলেছেন।

শনিবার সন্ধে থেকেই একটি ভাইরাল ভিডিও ধীরে বিতর্কে রাজ্য বিজেপি। দক্ষিণ কোলকাতা জেলার বিজেপি যুব নেতা প্রীতম সরকারের ভিডিও খুব ভাইরাল হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়াতে। বিতর্কিত বিজেপি নেতা প্রীতম সরকার দক্ষিণ কোলকাতা জেলা বিজেপির সভাপতি শঙ্কর সিকদারের ঘনিষ্ঠ। ভাইরাল ভিডিও তে শোনা যাচ্ছে জনৈক বিজেপি নেতা প্রীতম সরকার পুরভোটের টিকিট বিক্রি করছেন এমনকি বিজেপি রাজ্য সভাপতি কেউ টেনে এনেছেন প্রীতম। গোটা ঘটনায় থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার।

আগামী ১৯শে ডিসেম্বর কলকাতা পৌরসভার ভোট হতে চলেছে। পৌরসভার নির্বাচনে প্রার্থী পদ বিক্রির অভিযোগ উঠল বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে। বিজেপি নেতা প্রীতমের ভিডিও তে শোনা যাচ্ছে পৌরসভার ভোটে ১ লক্ষ টাকায় টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে বিজেপিতে এবং ভোটে জেতার জন্য শাসকদলের তৃণমূলের সঙ্গে সেটিং করিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন দক্ষিণ কোলকাতা জেলার বিজেপি সভাপতি শঙ্কর সিকদারের ঘনিষ্ঠ জেলা বিজেপির যুব নেতা প্রীতম সরকার।

ভাইরাল ক্লিপের কথোপকথন –

বিজেপি নেতা প্রীতম – আজ ৯টা ১৫ থেকে সুকান্তদার সঙ্গে আমাদের একটা মিটিং আছে। ওখানে ওই প্রস্তাবটা তুলব। জেলা সভাপতিও থাকবে আমার সঙ্গে। বাজেট কী একটা প্লানিং করেছো, সেটা কি তোমাদের কথা হয়েছে?

টিকিট প্রত্যাশী – দেখো আমরা ১২ খানা প্রার্থী চাইছি। এবার তোমরা সেখানটাতে কত কি বলছো, সেটা ঠিকঠাক করে বলো। আমি তোমাকে আগেই বলেছি, আমাদের অত ক্যাপাসিটি নেই।

বিজেপি নেতা প্রীতম – ক্যাপাসিটি নেই…. দেখো… কী বলি তো?

টিকিট প্রত্যাশীরা একটা মোটামুটি আন্দাজ করে বলো কিন্তু দ্যাখো প্লিজ অগ্নি বললে আমরা পারবি না তাহলে এমন কিছু বললে পারবোনা দেখো সত্যি কথা আগে থেকে বলে দেওয়া উচিত সম্পর্ক আগে ঠিক আছে

টিকিট প্রত্যাশী – তাও একটা মোটামুটি আন্দাজ করে বলো। কিন্তু দেখো প্লিজ, ওমনি বললে আমরা পারবই না তাহলে। এমন কিছু বললে পারব না দেখো, সত্যি কথা আগে থেকে বলে দেওয়া উচিত। সম্পর্ক আগে। ঠিক আছে।

বিজেপি নেতা প্রীতম – সে তো বটেই।

বিজেপি নেতা প্রীতম – ১২ টা হবে কি না জানি না। প্রতি ক্যান্ডিডেট ১ লাখ টাকা করে অন্তত দাও।

টিকিট প্রত্যাশী – প্রতি ক্যান্ডিডেট ১ লাখ টাকা চাপের হয়ে যাবে। একটু অ্যাডজাস্ট করে কথা বল না। কথা বল।

বিজেপি নেতা প্রীতম – সুকান্ত মজুমদারকে আমাকে কনভিন্স করতে হবে। আমার কি আছে? আমার তো কোনও ব্যাপারই নেই। আমার বন্ডিংসের ব্যাপার আছে। আর কিছু নেই।

টিকিট প্রত্যাশী – আচ্ছা। আমার সিটটা ভালো সিট হতে পারে কি?

বিজেপি নেতা প্রীতম – হতে পারে না, একদম হবে। এবং সেখানে তৃণমূলের সঙ্গে সেটিং করে জেতানোর যতরকম চেষ্টা, সব করা হবে।

টিকিট প্রত্যাশী – দেখো শঙ্করদা….. আমি চাই শঙ্করদা এবং তুমি যেন আমাকে সাপোর্ট দাও। যেহেতু শঙ্করদা জেলা সভাপতি। ঠিক আছে? সেই সাপোর্টাটা না পেলে কিন্তু আমি পারব না। প্লাস তুমি যাদের সঙ্গে বলছ সেটা সেটিং করে দেবে।

বিজেপি নেতা প্রীতম – তৃণমূলের অন্তগোষ্ঠীদ্বন্দ্ব আছে, এগুলোকে কাজে লাগাতে হবে। আমাদের বেহালাতে যেমন ১২১ নম্বর ওয়ার্ডটা খুব ফারটাইল চান্স। ১১৯ নম্বর ওয়ার্ড ফারটাইল চান্স ১২৪,১২৭,১২৮,১২৬….. ১২৬ এ আমি প্রার্থী হচ্ছি….. এই ওয়ার্ডগুলো খুব ফারটাইল ওয়ার্ড….

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *